Take a fresh look at your lifestyle.

সাদিক অনুসারীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর ট্রাকে

১১৬

 বরিশাল-৫ আসনে ভোটের হিসাব পাল্টে দিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর অনুসারীরা।

হঠাৎ করে বৃহস্পতিবার (৪ জানুয়ারি) তার অনুসারীরা স্বতন্ত্র ট্রাক প্রতীকের প্রার্থী সালাহউদ্দিন রিপনের উঠান বৈঠকে উপস্থিত হয়ে তার পক্ষে ভোট চেয়েছেন।

এ সময় তারা বরিশাল-৫ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীরা সমালোচনা করেছেন।

বরিশাল বিএম (বিএম) স্কুলের মাঠে বিকেল তিনটায় এ উঠান বৈঠক হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে না পাওয়া প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবউদ্দিন আহমেদ (বীর বিক্রম)।

এছাড়াও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে বাদ পড়া সাদিক আবদুল্লাহর অনুসারী নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গাজী নঈমুল হোসেন লিটু, অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন, আওয়ামী লীগ নেতা আরিফিন মোল্লা, মহানগর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক নিরব হোসেন টুটুল, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী নিগার সুলতানা হনুফা, মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি পরিমল চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক রইজ আহম্মেদ মান্না, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজীব খান, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মাইনুল ইসলামসহ মহানগর আওয়ামী লীগের ৩০ ওয়ার্ড ও সদর উপজেলার নেতারা উপস্থিত ছিলেন বলে সভায় উপস্থাপক বারবার তার নাম ঘোষণা করেন।

উঠান বৈঠকের সঞ্চালনা করেন বরিশাল সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ শাহীন।

সমাবেশে সালাহউদ্দিন রিপন ও তার স্ত্রী মিফতাহুল জান্নাত লুনা।

সভার প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবউদ্দিন আহমেদ (বীর বিক্রম) বলেন, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও শ্রমিক লীগসহ নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে এ উদ্যান উদ্বেলিত।

এ সময় তিনি আগামী ৭ জানুয়ারি ট্রাক প্রতীকে সবাইকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে সহায়তা চেয়েছেন।

সভার সঞ্চালক সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ শাহীন বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী তাদের ডাকেননি।

তিনি চেয়েছিলেন অটোপাস। সেই অটোপাস করতে দেওয়া হবে না জানিয়ে, সবাইকে ট্রাক প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

সভায় স্বতন্ত্র প্রার্থী সালাহউদ্দিন রিপন জানিয়েছেন, তিনি ১৯৯৫ সালে ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে প্রবেশ করি। কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর (নৌকার প্রার্থী জাহিদ ফারুক) সৃষ্টি ২০০৮ সালে।

সাদিক অনুসারী নেতাকর্মীদের পাশে পেয়ে সালাহউদ্দিন রিপন বলেন, আমার প্রচারে বাধা দেওয়া হয়েছে। কর্মীদের ওপর হামলা করেছে। কিন্তু এই মুহূর্ত থেকে বরিশালে এটা আর হবে না।

আগামী ৭ জানুয়ারী সকাল ৭টা থেকে বরিশাল-৫ আসনের কেন্দ্র হবে জনগণের মন্তব্য করে বলেন, ২৭ বছরে এখানে বরিশালের কেউ প্রার্থী হয়নি। নাম উল্লেখ না করে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জাহিদ ফারুক শামীমকে উদ্দেশ্যে করে করে বলেন, ৫ বছরে যিনি এমপি ছিলেন তিনি বরগুনার লোক। তিনি মনোনয়ন পেয়ে মুক্তিযুদ্ধের শক্তির কোনো নেতাকর্মীর সাথে দেখা করেননি।

তিনি দলের নেতাকর্মীদের বাদ কিভাবে চলেন প্রশ্ন রাখেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সালাহউদ্দিন।

কর্নেল জাহিদ ফারুক শামীম ১৯৭১ সালে পাকিস্তানে ছিলেন জানিয়ে বলেন, তিনি হানাদার বাহিনীর সহযোগী ছিলেন।

সবাইকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার করে সালাহউদ্দিন রিপন বলেন, বরিশালের মানুষের কাছ থেকে ভালোবাস ছাড়া কিছু নিতে আসেনি। আমৃত্যু বরিশালের মানুষের সেবা করবো।

Leave A Reply

Your email address will not be published.